প্রথমবারের মত ফ্ল্যাট কিনতে যাচ্ছেন? জেনে নিন ৫টি প্রয়োজনীয় টিপস

প্রথমবারের মত ফ্ল্যাট কিনতে যাচ্ছেন? জেনে নিন ৫টি প্রয়োজনীয় টিপস

ছোট থাকতে স্কুল, পড়ালেখা, বন্ধের দিন বা জন্মদিন, এইতো, এর বাইরে খুব একটা চিন্তা করতে হত না। কিন্তু বড় হওয়ার সাথে সাথে ছোটবেলার সরলতা, নিশ্চিন্ত – নির্ভাবনার জায়গাগুলো দখল করে নেয় অসংখ্য চিন্তাভাবনা আর দায়িত্ব। ভবিষ্যতের ভাবনা ভাবাই জ্ঞানীর কাজ, ধীরে ধীরে আমরা তা উপলব্ধি করতে শুরু করি। ক্যারিয়ার শুরু করার সাথে সাথে আমরা বিয়ে, পরিবার এবং আরো দূরের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবতে আরম্ভ করি। এবং এভাবেই একসময়, কিছুটা সামর্থ্য হলে সবাই চিন্তা করে সবচাইতে স্থায়ী বিনিয়োগ তথা রিয়েল এস্টেট নিয়ে। আর অনেকের জন্য সে বিনিয়োগ শুরু হয় একটি ফ্ল্যাট কেনা দিয়ে। যে কোন কিছুই প্রথমবার করতে গেলে অনেককিছুই শেখার আছে, জানার আছে। অনেকেই প্রথমবার ভুল থেকে পরবর্তীবারে শেখে। কিন্তু বিষয় যখন নতুন ফ্ল্যাট কেনার মত বৃহৎ বিনিয়োগের, সেখানে ভুল করার কোন সুযোগ নেই। আর সেজন্যই আমাদের আজকের আয়োজন, নতুন ফ্ল্যাট কিনতে যাওয়ার আগে আপনাকে যে ৫টি জিনিসের দিকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে সেই দিকগুলো নিয়ে।

১. শুরুটা হোক পড়াশুনা দিয়ে

open books and pen
নতুন ফ্ল্যাট কেনার আগে এ সংক্রান্ত পড়াশুনা করতে হবে অনেক

যেহেতু আপনি প্রথমবারের মত ফ্ল্যাট কিনতে যাচ্ছেন, তাই রিয়েল এস্টেট নিয়ে আপনার উচিত কিছুটা পড়ালেখা করে নেয়া। তবে, পড়ালেখার নাম শুনে ঘাবড়ে যাবার কিছু নেই, যুগের সাথে সাথে পড়াশুনার সংজ্ঞাও বদলে গিয়েছে। এখন পড়াশুনা শুধু বই খাতাতেই সীমাবদ্ধ না। বরং অডিও, ভিডিও বা আর্টিকেল, যখন যে মিডিয়ামে সুবিধা হয় তা ব্যবহার করেই রিয়েল এস্টেট এবং এর বিভিন্ন টার্ম নিয়ে আপনার জ্ঞান বৃদ্ধি করুন। দেশ কিংবা দেশের বাইরে, নতুন ফ্ল্যাট কেনা সব জায়গাতেই এক ক্লান্তিকর জার্নি। তাই একে নিয়ে যতটা সম্ভব প্রস্তুতি নিন। আর ব্যাপারটা যখন বাসা কেনার, প্রস্তুতির নেই কোন শেষ। গৃহ ঋণ, আইনি নথিপত্র এবং আইনের বিভিন্ন দিক, অর্থায়ন, বাসার বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা, আশপাশের সুবিধাদি, প্রপার্টির নানা দিক নিয়ে জানার নেই কোন শেষ।

২. আগেই ফিক্স করুন আপনার বাজেট

নতুন ফ্ল্যাট কেনার আগেই বাজেট ঠিক করুন
ফ্ল্যাট কেনার আগেই ঠিক করুন আপনার বাজেট

একবার রিয়েল এস্টেট নিয়ে একটি আইডিয়া দাড়িয়ে গেলে আপনার পরবর্তী কাজ হবে বিস্তারিত বাজেট প্ল্যান করে ফেলা। আপনি নতুন ফ্ল্যাট কিনতে গিয়ে নিশ্চয়ই পথে বসতে চান না? প্রয়োজনে বেশখানিকটা সময় নিন, কিন্তু অবশ্য অবশ্যই বাজেট সেট করুন আগেভাগেই। এই বাজেট হতে হবে আপনার চাওয়া আর সামর্থ্যের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তাই বাজেট একদম কাটায় কাটায় নির্দিষ্ট না করে এতে কিছুটা “ব্রিদিং স্পেস” রাখাই বুদ্ধিমান। বাজেটের এই অ্যাডজাস্টমেন্ট যে খুব বেশি হতে হবে তা না, মোট বাজেটের ১০ ভাগ এদিক সেদিক করার প্রস্তুতি থাকলেই হবে। একটি বিস্তারিত বাজেটই পারে আপনাকে আপনার চাহিদা ও প্রয়োজনীয়তার মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমন্বয় করাতে।

৩. আপোষযোগ্য নয় এমন বিষয়ের লিস্ট করুন

cartoonized stop sticker

বাজেটে যেমন কিছুটা এদিক সেদিক করার প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে, ঠিক তেমনি আপনার নতুন ফ্ল্যাটের কিছু জিনিস আবার আগে থেকেই নির্ধারন করে রাখতে হবে যা একেবারেই আপোষযোগ্য না। তবে কোন কোন আইটেম সিলেক্ট করবেন তা নিতান্তই আপনার নিজের উপর। আপনার নতুন ফ্ল্যাট হবে আপনার একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন। এখন সে স্বপ্নে একটি বিশাল বারান্দা দরকার নাকি একটি বিশাল, দক্ষিণমূখী শোবার ঘর দরকার তা আপনি নিজেই ঠিক করুন। আর ঠিক করে ফেললে এই চাহিদা সম্পর্কে আপনার প্রপার্টি এক্সপার্টকে জানাতে ভুলবেন না।

৪. নতুন ফ্ল্যাট কিনবার সময় দালালদের খপ্পরে পড়বেন না

man showing thumbs up
প্রতারক দালালদের হাত থেকে সাবধান!

বাংলাদেশে আবাসন খাত নিয়ে যে দুর্নাম, মানুষের মনে যে অনাস্থা তার জন্য অনেকাংশেই দায়ী এলাকা ভিত্তিক দালালেরা। এই সব দালালেরা আপনাকে অনেক বড় বড় স্বপ্ন দেখাবে, অবিশ্বাস্য মূল্যে প্রপার্টি কিনে দেয়ার কথা শোনাবে কিন্তু দিন শেষে প্রতারণাই তাদের উদ্দেশ্য। এতকিছু জানার পরেও সামান্য কিছু টাকা বাচানোর আশায় অনেকেই ছুটে যান এই দালালদের কাছে, নাহলে এই দালালদের ব্যবসা এত রমরমা হয় কিভাবে? আপনি যদি রিয়েল এস্টেট সেক্টরে নতুন হন, যে কোন মূল্যে এড়িয়ে চলুন এসব দালালদের। আপনার দরকার সত্যিকার অর্থে প্রপার্টি এক্সপার্টদের পরামর্শ যা দিতে পারে শুধুমাত্র আমার বিজনেস ২৪ ডট কম এর মত রিয়েল এস্টেট মার্কেটপ্লেস।

৫. একই এলাকার একাধিক প্রপার্টি সম্পর্কে খোঁজ নিন

a comfy room with furniture
যত বেশি অপশন তত বেশি আপনার জেতার সম্ভাবনা!

একটি প্রপার্টি পছন্দ হয়ে গেলে একই এলাকার অন্যান্য প্রপার্টি সম্পর্কে খোঁজ নিন, এই হবে আমাদের শেষ পরামর্শ। এর পেছনে কারণ নানাবিধ। প্রথমত, এলাকায় বাড়ির দাম সম্পর্কে একটি ভাল ধারণা আপনি পাবেন। কোন কারণে আপনার পছন্দ করা ফ্ল্যাটের দাম কম বা বেশি হলে তার কারণও আপনি বুঝতে পারবেন। ফলে এই বাসার ন্যায্য দাম কত তা পরিষ্কার হয়ে যাবে। এছাড়াও খুজতে খুজতে হয়ত আপনি যেটি পছন্দ করেছিলেন তার থেকেই সুন্দর একটি নতুন ফ্ল্যাট আপনার চোখে পড়ে যেতে পারে যার দামও হয়ত কম। আর সব সময়ই পরামর্শ দেয়া হয়, একটি বাসা পছন্দ হলে এলাকার অন্য বাসাগুলোও ঘুরে দেখুন।

প্রথমবার নতুন ফ্ল্যাট কিনতে গেলে এই টিপসগুলো নিঃসন্দেহে আপনার কাজে আসবে। এছাড়া আর কোন পরামর্শ কি আছে যা আমরা বাদ দিয়ে গিয়েছে? জানিয়ে দিন কমেন্ট বক্সে!

Leave A Comment

Cart
Your cart is currently empty.