নেটওয়ার্ক মার্কেটিং টিপস – ১০০% কার্যকরী ।

নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কথাটি শুনে ভয় পাবার কোনো কারণ নেই। আমার এখানে কোনো MLM বিজনেস এর কথা বলছি না । আমরা এখানে একটা বিজনেস নেটওয়ার্ক এর কথা বলছি । আমার সবাই জানি যার বিজনেস নেটওয়ার্ক যত বড় সে বিজনেস লাইফ এ ততো বেশি সাকসেসফুল।

আমার যে বিজনেসই করি না কেন আমার যদি আমাদের বিজনেস এ নেটওয়ার্ক মার্কেটিং সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে পারি , তবে সাকসেস পাওয়াটা আমারদের জন্য কিছুটা হলেও সহজ হয়ে যাবে । তাই আজকে মোস্ট ইম্পরট্যান্ট কিছু নেটওয়ার্ক মার্কেটিং টিপস দেয়া হল :

 টিপস একঃ 
প্রথমে লক্ষ্য স্থির করুন এরপর পরিকল্পনা গ্রহন করুন এবং পরিকল্পনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহন করে তা বাস্তবায়ন করুন।

 টিপস দুইঃ
আজ রাতে বসে আগামী দিনের কর্ম-পরিকল্পনা প্রস্তুত করে ফেলুন, কাজগুলো সময়মত ও সঠিকভাবে সম্পাদনের জন্য মানসিক প্রস্তুতি নিন।কোথায় কার সাথে দেখা করবেন, কি বলবেন সেটাও ঠিক করে রাখুন ।

 টিপস তিনঃ
আপনার বিজনেস এর সকল ক্লায়েন্ট এক রকম না । ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তিকে ভিন্ন ভিন্নভাবে ফলোআপ করুন। কারণ প্রত্যেকের মনোভাব ভিন্ন। এক্ষেত্রে নিজেকে ধৈর্য্যশীল ও অনুপম ব্যক্তিত্বের অধিকারী হতে হবে।

 টিপস চারঃ
সর্বদা হাসি-খুশী প্রানবন্ত আচরন প্রদর্শন করুন । প্রানবন্ত পরিবেশ অন্যদের মাঝে ইতিবাচক মনোভাব তৈরী করে।মনে রাখবেন ” একজন হাসি খুশি বিজনেস পারসন এর বিজনেস অটো বুস্ট হয় ” ।

 টিপস পাঁচঃ
নিজে যতবেশি জানবেন ও ব্যক্তিত্বের অধিকারী হবেন ততবেশি অন্যদের প্রভাবিত করতে পারবেন। আর বিজনেস মার্কেটিং এর অন্যতম প্রধান শর্তই হলো অন্যকে প্রভাবিত করা ।

 টিপস ছয়ঃ
নিজেকে ভালো শ্রোতা হিসেবে তৈরী করে নিন। গ্রহীতা বা সম্ভাবনাময় ক্রেতাকে বলার সুযোগ দিন।বিজনেস মার্কেটিং মানেই সম্পর্ক তৈরি করা । ক্রেতার সাথে এমন সম্পর্ক তৈরি করুন যেন তিনি আপনাকে তার নিজেরই একজন ভাবেন ।

 টিপস সাতঃ
একজন সফল ব্যক্তি ঐ ব্যক্তি যিনি নিজের ভুল হতে শিক্ষা গ্রহন করেন। কিন্তু একজন অতি সফল ব্যক্তি ঐ ব্যক্তি, যিনি অন্যের ভুল হতে শিক্ষা গ্রহন করেন।আমাদের জীবনটা খুব ছোট, জীবনে কিছু করার জন্য আমরা ২০-৩০ বছর সময় পাই । এই মূল্যবান সময়টা যদি শুধু নিজের উপরে থিসিস করে করেই শেষ করে ফেলি , তবে আমাদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে । তাই অবশ্যয় অন্যের ভুল থেকেই আমাদের শিক্ষা নিতে হবে ।

Leave A Comment

Cart
Your cart is currently empty.