নেটওয়ার্ক মার্কেটিং (Network Marketing) আশীর্বাদ না অভিশাপ ?

প্রতিদিন আমরা ন্যূনতম ৫০০ পণ্য ব্যাবহার করে থাকি। এই সকল পণ্য সমূহ কোনটাই আমরা সাধারনত উৎপাদন করি না। এই পণ্য সমূহ উৎপাদনকারী থেকে ভোক্তা পর্যন্ত আসার পুরো প্রক্রিয়াকেই মার্কেটিং বা বিপনন বলে,

বিপননের ব্যাপারে পরিস্কার ধারনা পেতে পণ্য বিপনন এর বিভিন্ন যুগের কথা একটু জেনে নেই,

উৎপাদন যুগ(Production ERA)—- এটির সময়কাল ১৯২০ সাল পর্যন্ত ছিল। যখন পণ্য উৎপাদন করাটাই ছিল কঠিন। যারা উৎপাদন করতে পারত, ক্ষমতা তাদের হাতেই ছিল কারন একটি পণ্য কিভাবে উৎপাদন হয়, এই ফর্মুলা ছিল গুটি কয়েক লোকের হাতে। এক্ষেত্রে 4P এর দিকে নজর বেশি দেয়া হত। Product, Price, Place, Promotion.

বিক্রি যুগ(Sales ERA)—- ১৯২০-১৯৫০ পর্যন্ত ছিল বিক্রয় যুগ। যখন অনেকেই পণ্য উৎপাদন করতে পারত। তখন শুধু উৎপাদনের ক্ষমতা দিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রন করা যেত না। তখনই শুরু হল বিজ্ঞাপনী প্রচারনা। তখন যে কোম্পানি ভালো বিজ্ঞাপন উপস্থাপন করতে পারত, তার পণ্য ভালো চলত। এক্ষেত্রে জোর দেয়া হত, Sustaining, Targeting, Positioning .

বিপনন যুগ (Marketing ERA)—- ১৯৫০ এর পর থেকে পণ্য বিপণনের এই ধারাও বদলে গেল। এবং শুরু হল এক নতুন যুগের, যেখানে ক্রেতা বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয় না। বাজারে খুব বেশি প্রতিযোগিতা শুরু হল। তখন ক্রেতার মন রক্ষা করাই হল কোম্পানিগুলোর প্রধান কাজ। এবং শুধু তাই নয়, ক্রেতা কি চায় তা খুঁজে বের করা এবং তাই অভাব পূরণ করা হল কোম্পানি গুলোর লক্ষ্য। অর্থাৎ ক্রেতাকে শুধু ক্রেতা নয়, বরং একজন মানুষ হিসেবে বিবেচনা করা। ফিলিপ কটলার এই Marketing ERA নিয়ে একটা বই লিখেছেন “New Marketing ERA in Region. Marketing 3.0” এই যুগের অন্যতম এই বিপনন ব্যবস্থার নামই হচ্ছে “Network Marketing”

বিখ্যাত লেখক এবং নেটওয়ার্কার John Milton Fogg এর ভাষায়, “Network Marketing combines two of the most powerful forces at work in our world today, Network & Marketing.” অর্থাৎ নেটওয়ার্ক এবং মার্কেটিং, এই দুটি শক্তিকে একত্রিত করে যে শক্তিটি কাজ করছে তাই হল নেটওয়ার্ক মার্কেটিং।

এর সংজ্ঞা বিভিন্ন ভাবে দেয়া যায়, তবে এক কথায় “কোন পণ্য বা সেবা, কোন ক্রেতার কাছে দ্রুত এবং সহজে, কোন ব্যাক্তি, দল বা নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে পৌঁছে দেবার পদ্ধতিকেই নেটওয়ার্ক মার্কেটিং বলে। এটাকে হোম বেজ মার্কেটিং, মাল্টিলেভেল মার্কেটিং, ডাইরেক্ট সেলস, ফ্রিডম এন্টারপ্রাইজ ইত্যাদি নামেও ডাকা হয়।

এর উদ্ভব হয় আনুমানিক ১৯৪০ সালে। উদ্ভাবক ছিলেন ডঃ কার্ল রেইন বোর্গ।

দীর্ঘ চরাই উৎরাই পেরিয়ে ১৯৫৮ সালে এটি আমেরিকান পার্লামেন্টে ফ্রাঞ্চাইজ মার্কেটিং সিস্টেম এর পাশাপাশি ১০ ভোট বেশী পেয়ে স্বীকৃতি পায়।

নেটওয়ার্ক মার্কেটিং সম্পর্কে বিল ক্লিনটন তারপর থেকে বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ১৩০ টির ও বেশী দেশে প্রায় ১৩০০০ এর ও বেশী কোম্পানি এ সিস্টেমে ব্যবসা করছে।

Dr. Richard Laser এর মতে, “Network marketing doesn’t make individuals free, it’s liberating the whole nation.”

Bill Gets এর বলেছেন, “If I would be given a chance to start all over again, I would choose Network Marketing”

Waren buffet এর মতে “Network marketing is the Best Investment I Ever Made”

পৃথিবীর অন্যতম নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কোম্পানি যেমন AMWAYAVONUSANASKYBIZTUPPERWARE, ইত্যাদি। বিশ্বে এই নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কোম্পানিগুলোকে একটি নির্দিষ্ট নীতিমালার আওতায় আনার জন্য গঠিত হয়, Direct Selling Association(DSA) এবং Federal Trade Commission(FTC). আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ মালশিয়াতে এই সিস্টেম চর্চা শুরু হয় ১৯৭৩ সালে, কিন্তু দীর্ঘ ২০ বছর পর অর্থাৎ ১৯৯৩ সালে মালশিয়াতে একটি সুনির্দিষ্ট নীতিমালার আওতায় এই সিস্টেমকে বৈধতা দেয়া হয়। বর্তমানে মালশিয়াতে প্রায় ৮৫০ কোম্পানি এই সিস্টেম চর্চা করছে।
কিছুদিন আগে ইস্তাম্বুলে World federation Direct Selling Association(WFDSA) এর আয়জনে অনুষ্ঠিত হল ডিরেক্ট সেলিং কনফারেন্স। যেখানে বিশ্বের প্রায় সকল নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কোম্পানি গুলো উপস্থিত হয়েছিল।

এই সিস্টেমটি এতো জনপ্রিয় হওয়ার পিছনের কারণগুলো হোলঃ
১. কোন বড় বিনিয়োগ এর প্রয়োজন নেই
২. কোন অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই
৩. অল্প সময় বিনিয়োগ করেই শুরু করা যায়
৪. কোন ঝুঁকি নেই
৫. কোন নির্দিষ্ট স্থান, কাল, পাত্র নেই
৬. রয়েছে নিশ্চিত এবং স্থায়ী আয়ের সুযোগ
৭. প্রচুর মানুষের সাথে বন্ধুত্ব হওয়ার এবং তাদের সাহায্য করার সুযোগ
৮. দ্রুত অবসর গ্রহনের সুযোগ
৯. প্রচুর সম্মান
১০. প্রচুর অর্থ উপার্জনের সুযোগ ইত্যাদি।

নেটওয়ার্ক মার্কেটিং এর সৌন্দর্য বলে শেষ করা যাবে না। পোস্টের আকার বৃদ্ধি করব না। এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানতে আপনাদের কাছে আছে ইন্টারনেট। একটু সার্চ দিলেই পেয়ে যাবেন প্রচুর তথ্য উপাত্ত। বিল ব্রিটএন্থনি রবিন্স এর মত লোকেরা কিন্তু পৃথিবীর সেরা সেরা নেটওয়ার্কার।

*** এই সিস্টেমটির প্রসার এর সাথে সাথে একশ্রেণীর লোক এই সিস্টেমের সাদৃশ্য একটি ধোঁকাবাজি পদ্ধতি চালু করে যাকে বিশ্বে পিরামিড স্কিম বলে। এই পিরামিড স্কিম একধরনের জুয়া। এবং সারা বিশ্বে এই পিরামিড স্কিম নামের ধোঁকাবাজি সিস্টেমকে নিষিদ্ধ করা হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য যে তথাকথিত কিছু পণ্ডিত ব্যাক্তিগন পিরামিড স্কিমের সাথে নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কে সবসময় গুলিয়ে ফেলেন।

তাই সবার প্রতি আমার আহবান থাকবে, নেটওয়ার্ক মার্কেটিং সম্পর্কে জানুন বুঝুন। গঠনমূলক মন্তব্য করুন। সব কাজ সবার ভালো লাগবে না, তাই বলে সেই কাজ খারাপ হয়ে যাবে না। অনেকেই মনে করেন যে নেটওয়ার্ক মার্কেটিং বা এম.এল.এম দ্রুত বড়লোক হবার কোন সিস্টেম। তাদের উদ্দেশে বলছি, নেটওয়ার্ক মার্কেটিং দ্রুত বড়লোক হবার কোন সিস্টেম নয়। অন্য সব বিপনন ব্যাবস্তার মত এটিও একটি বিপনন ব্যাবস্তা। এই বিষয়ে অনার্স, মাস্টার্স সহ বিভিন্ন প্রফেশনাল কোর্স চালু আছে মালয়শিয়া, ইউরোপ আমেরিকা সহ সারা বিশ্বে।

মার্কেটিং গুরু Philip Kotler এর একটি উক্তি হচ্ছে “Network Marketing will dominate future world”



আরও বিস্তারিত জানতে সহযোগিতা করবে এমন কিছু বইঃ

** Think Network Marketing & Grow Rich – Major C Mohon
**Going the Distance in Network Marketing – K.Sow. Ph.D
**Wave 3, The New Era In Network Marketing – Richard Poe
**Who Stole The American Dream? – Burke Hedges
**The Everything Network Marketing Book – Margaret Kaeter
** Network Marketing Wolds’s Greatest Opportunity – John Kalench

না জেনে বুঝে উল্টা পাল্টা বলার অভ্যাস পরিত্যাগ করুন।
মানুষকে এই আধুনিক বিপনন ব্যবস্থা সম্পর্কে জানার সুযোগ করে দিন। 🙂

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave A Comment

Cart
Your cart is currently empty.